মিন্নির সম্বল এখন ‘থালা-বাটি কম্বল

0
51

বরগুনা প্রতিনিধি: বহুল আলোচিত বরগুনার রিফাত শরীফ হত্যা মামলার ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত ছয় আসামিকে রাখা হয়েছে বরগুনা জেলা কারাগারের কনডেম সেলে। তাদের মধ্যে মহিলা ওয়ার্ডের একটি কনডেম সেলে রাখা হয়েছে নিহত রিফাতের স্ত্রী ও এ হত্যা মামলার অন্যতম আসামি আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিকে।

এর আগে বুধবার দুপুরে চাঞ্চল্যকর এ হত্যা মামলার রায় দেন বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ মো. আছাদুজ্জামান। এসময় মিন্নিসহ সব আসামি আদালতে উপস্থিত ছিলেন। রায়ের পরেই আদালত থেকে পৃথকভাবে দণ্ডপ্রাপ্তদের কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়।

বরগুনা জেলা কারাগারের কনডেম সেলে সদ্য ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত এ ছয় আসামি ছাড়া অন্য কোনো কারাবন্দি নেই এমন তথ্যই নিশ্চিত করেছেন বরগুনা জেলা কারাগারের তত্ত্বাবধায়ক (জেল সুপার) মো. আনোয়ার হোসেন।

তিনি বলেন, ‌এ মুহূর্তে বরগুনার কারাগারে নারী বন্দিদের মধ্যে একমাত্র মিন্নিই কনডেম সেলে আছেন। মিন্নি ছাড়া বরগুনার কারাগারের কনডেম সেলে অন্য কোনো নারী বন্দি নেই। কারাবিধি অনুযায়ী মিন্নিকে কনডেম সেলে নির্ধারিত পোশাক, থালা, বাটি ও কম্বল দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া রিফাত হত্যা মামলার অপর পাঁচ আসামিকে কনডেম সেলে রাখা হয়েছে। এ পাঁচজন বরগুনার কারাগারের কনডেম সেলে আর অন্য কোনো পুরুষ বন্দিও নেই।

তিনি আরও বলেন,মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের কারাগারের যে বিশেষ কক্ষে রাখা হয় সেটাকে কনডেম সেল বলা হয়। কনডেম সেলের বন্দিরা কখনও সেল থেকে বাহিরে বের হতে পারেন না। এসব বন্দিরা বিধি অনুযায়ী মাসে একবার স্বজনদের সঙ্গে দেখা করতে পারেন। এছাড়া সপ্তাহে একবার তারা ফোনে তাদের স্বজনদের সঙ্গে একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত কথা বলতে পারেন।

রিফাত হত্যা মামলায় ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত ছয় আসামিই কনডেম সেলে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছেন জানিয়ে তিনি আরও বলেন, কারাবিধি অনুযায়ী ছয় বন্দিকেই কনডেম সেলে থালা, বাটি ও কম্বল দেওয়া হয়েছে। এছাড়া প্রতি আসামিকে কারাগারের পক্ষ থেকে দুই সেট পোশাক দেওয়া হয়েছে।

মিনিসহ এ মামলার ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত ছয় আসামিকে দেশের অন্য কোন কারাগারে স্থানান্তরের পরিকল্পনা আছে কিনা জানতে চাইলে জেল সুপার আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘এ বিষয়টি আমরা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে তাদের নির্দেশনা অনুযায়ী পদক্ষেপ নেবো। আপাতত এ আসামিদের উচ্চ আদালতে আপিল করার জন্য প্রয়োজনীয় কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি। ‘

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের ২৬ জুন সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বরগুনা সরকারি কলেজ রোডের ক্যালিক্স একাডেমির সামনে স্ত্রী মিন্নির সামনে রিফাত শরীফকে কুপিয়ে জখম করে নয়ন বন্ড ও রিফাত ফরাজীর সহযোগীরা। গুরুতর অবস্থায় রিফাতকে উদ্ধার করে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়।

উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে বরিশাল শেরে-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রিফাত মারা যান। এরপর রিফাতের বাবা দুলাল শরীফ বাদী হয়ে সাব্বির আহম্মেদ ওরফে নয়ন বন্ডকে প্রধান আসামি করে ১২ জনের নামোল্লেখ ও অজ্ঞাতপরিচয় আরও পাঁচ/ছয়জনের বিরুদ্ধে বরগুনা থানায় হত্যা মামলা করেন।

এ মামলায় প্রথমে মিন্নিকে প্রধান সাক্ষী করেছিলেন নিহত রিফাতের বাবা। পরে ২ জুলাই ভোরে জেলা সদরের বুড়িরচর ইউনিয়নের পুরাকাটা ফেরিঘাট এলাকায় পুলিশের সঙ্গে‘বন্দুকযুদ্ধে’ প্রধান আসামি নয়ন বন্ড (২৫) নিহত হন। এ কারণে মামলা থেকে পরে তার নাম বাদ দেওয়া হয়েছে।

মন্তব্য করুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য লিখুন!
দয়া করে আপনার লিখুন